1. admin@idealmediabd.com : Sultan Mahmud : Sultan Mahmud
  2. abutalharayhan62@gmail.com : Abu Talha Rayhan : Abu Talha Rayhan
  3. nazimmahmud262@gmail.com : Nazim Mahmud : Nazim Mahmud
  4. tufaelatik@gmail.com : Tufayel Atik : Tufayel Atik
জোট রাজনীতি সমাপ্তি; কিছু প্রশ্ন : শেখ ফজলুল করীম মারুফ - ইত্তেহাদ টাইমস
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৩:২১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
আন্তর্জাতিক ক্বিরাত সংস্থা বাংলাদেশের সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত বৃটেনের ইপসুইচে জাতীয় সীরাত কনফারেন্স ২০২১ অনুষ্ঠিত কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে কুরআন অবমাননাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে : হেফাজত ভারতের আসাম রাজ্যে সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের ওপর হামলা ও নিপীড়ন বন্ধ করতে হবে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেলো মহানবী (স.)-এর ব্যঙ্গচিত্র আঁকা সেই শিল্পী জোট রাজনীতি সমাপ্তি; কিছু প্রশ্ন : শেখ ফজলুল করীম মারুফ প্রয়োজনে কিংবা অপ্রয়োজনে ক্রেতা হয়ে যান তাদের দ্বিতীয় ধাপে ৮৪৮ ইউনিয়নে নির্বাচন ১১ নভেম্বর ৭৫-এ পা রাখলেন শেখ হাসিনা : অকুতোভয় মানসিকতাই যার দেশ গড়ার শক্তি কানাইঘাট দিঘীরপাড় ইউপিতে ভিজিটির চাল বিতরণ

জোট রাজনীতি সমাপ্তি; কিছু প্রশ্ন : শেখ ফজলুল করীম মারুফ

ইত্তেহাদ টাইমস
  • প্রকাশটাইম: সোমবার, ৪ অক্টোবর, ২০২১

শেখ ফজলুল করীম মারুফ 

চারদলীয়জোট ভেঙ্গে গেছে। বিএনপির সাথে ২০০০ সালে যে দলগুলো জোট বদ্ধ হয়েছিলো তার মধ্যে সবগুলো ইসলামপন্থী দলই জোট ত্যাগ করেছে। (জামায়াত বাদে)

প্রথম জোট ত্যাগ করে জোট হওয়াকালীন ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান শাইখুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক (রাহ.) ও তার দল।

তৎকালীন ইসলামী ঐক্যজোটের মহাসচিব মুজাহিদে মিল্লাত মুফতি আমিনী (রাহ.) এর দলও জোট ত্যাগ করেছে।

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ও খেলাফত মজলিসও জোট ত্যাগ করেছে। বলা যায় ২০০০ সালে কওমীপন্থীরা যে জোটের রাজনীতি শুরু করেছিলো তার সমাপ্তি হয়েছে।

এই সমাপ্তি যাত্রায় জোট ত্যাগের কারণ হিসেবে সবাই প্রায় একই কারণ দর্শিয়েছে। আবার পর্দার অন্তরালে আলাপও প্রায় একই রকম।

জোটের রাজনীতি সমাপ্তির এই মাহেন্দ্রক্ষণে দাঁড়িয়ে জোটে যাওয়া দল ও তাদের কর্মীদের কিছু আত্মপর্যালোচনামূলক প্রশ্নের মুখোমুখি হওয়া উচিৎ।

যে প্রশ্নগুলোর উত্তর খোঁজা উচিৎ তাহলো,

১. এই জোটের রাজনীতির প্রাপ্তি কি?

২. এই জোটের রাজনীতি করে কওমীপন্থীরা কি সরকার পরিচালনায় কোন গুনগত পরিবর্তন আনতে পেরেছে?

বাস্তবতা তো বলে, ২০০১-০৬ এর সরকার দুর্নীতিতে বারংবার চ্যাম্পিয়ান হয়েছে। এবং সামগ্রিকভাবে প্রায় সকল বিশ্লেষক একমত হবে বিএনপি ২০০১-০৬ এর তুলনায় ৯০-৯৫ তে ভালো সরকার পরিচালনা করেছে।

তাহলে কওমীপন্থীদের সরকারী জোটে থাকার কোন প্রভাব সরকার পরিচালনায় পরে নাই বা কওমীপন্থীরা সরকার পরিচালনায় কোন প্রভাব ফেলতে পারে নি তা তো স্পষ্ট।

তাদেরকে তো সরকারের অংশই করা হয় নাই।

তবে জামায়াতে ইসলামী নিজেদের জায়গায় সততা ও দক্ষতার সাক্ষর রেখেছে। তাদের পরিচালিত দুইটি মন্ত্রণালয় আসলেই দুর্নীতিমুক্ত ছিলো।

৩. কওমীপন্থীরা কি এই জোটের সুবিধা নিয়ে নিজেদের দল গোছাতে পেরেছে?

নিজের প্রতি সৎ হলে এর উত্তর হবে, না! বরং প্রবল শক্তিশালী ইসলামী ঐক্যজোট ভেঙ্গে গেছে। জোটবদ্ধ দলগুলো আরো দুর্বল হয়েছে। কোন ছাত্র সংগঠনই তাদের বিস্তৃতি বাড়াতে পারে নি। বরং ৯০ এর দশকের ছাত্র মজলিস আরো শক্তিশালী ও মজবুত ছিলো।

তবে জামায়াতে ইসলামী এই মাত্রায় সফল হয়েছে। ইসলামী ছাত্র শিবির তাদের স্বর্ণসময় কাটিয়েছে। জামায়াতের সাংগঠনিক ভিত্তি মজবুত হয়েছে, দলের বিস্তৃতি বেড়েছে।

৪. কওমীপন্থীরা কি জোটের প্রভাব খাটিয়ে কোন ধরণের সামাজিক, আর্থিক বা মিডিয়া প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে পেরেছে?

এরও উত্তর হবে না৷ এক মারকাজুল ইসলামীর উদাহরণ টানা হলেও সত্য হলো, মারকাজুল ইসলামী স্থায়ী হয় নাই।

এই ক্ষেত্রেও জামায়াতে ইসলামী সফল। তাদের আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো মজবুত হয়েছে, নিজস্ব মিডিয়া হাউজ গড়ে উঠেছিলো।

ফলে এই মাত্রাতেও কওমীপন্থীদের প্রাপ্তি শূণ্য।

৫. কওমীপন্থীরা কি রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে নিজেদের অনূকূল লোক বসাতে পেরেছে?

উত্তরঃ- না।

৬. তারা কি তাদের একান্ত কর্মস্থল ও রাজনৈতিক শক্তির উৎস কওমী মাদ্রাসার স্বীকৃতি আদায় করতে পেরেছে?

উত্তরঃ- না।

৭. যে ফতওয়া নিষিদ্ধের রায়ের প্রতিবাদ থেকে আন্দোলন চাঙ্গা হয়েছিলো সেই ফতোয়া নিষিদ্ধের রায় কি বাতিল করা গিয়েছিলো?

উত্তরঃ- না।

৮. বিবাড়িয়ার শহীদদের হত্যার বিচার করা হয়েছিলো?

উত্তরঃ- না।

এগুলো আমাদের বাহ্যিক চোখে দেখা। আমরা জানি না, সরকারের ভেতরে বা দলগুলোর ভেতরে কোন রকম ইতিবাচক অর্জন হয়েছিলো কিনা।

এখন জোটের অন্তর্ভুক্ত দলগুলোর উচিৎ একটা নির্মোহ বিশ্লেষণ করা। নিজেদেরকে শক্তভাবে প্রশ্ন করা যে, জোটের রাজনীতির প্রাপ্তি কি? প্রাপ্তির চেয়ে ক্ষতি কি বেশি হয় নি?

৯০ এর দশকের শক্তিশালী ইসলামী ঐক্যজোট কি ভেঙ্গে খানখান হয়ে যায় নি? সামগ্রিকভাবে ইসলামী রাজনৈতিক দলগুলো কি শক্তি হারায় নি?

সরকারের ধরপাকড়ের অজুহাত হয় তো দেয়া হবে। কিন্তু জামায়াতে ইসলামীর তুলনায় তা কতটুকু? তারপরেও তো জামায়াতে ইসলামী আজো দল হিসেবে শক্তিশালী আছে।

এই আলাপটা তোলার কারণে অনেকের তোপের মুখে পড়তে হবে। কিন্তু এখনকার তিক্ত দাবী হলো, এই প্রশ্নগুলোর জবাব খোঁজা। এবং এর থেকে শিক্ষা নেয়া।

তা না হলে আবারো সিন ক্রিয়েট করে কওমীপন্থীদের সমর্থন এদিক সেদিক নেয়া হবে যার পরিনতি আবারো দিন শেষে একই রকম হতাশার হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
ইত্তেহাদুল উম্মাহ ফাউন্ডেশন-এর একটি প্রতিষ্ঠান copyright 2020: ittehadtimes24.com  
Theme Customized BY MD Maruf Zakir