1. admin@idealmediabd.com : Sultan Mahmud : Sultan Mahmud
ধর্ষণ কেন হয়, এর উৎস এবং প্রতিকার - ইত্তেহাদ টাইমস
শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০২:০৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
প্রতিবন্ধী মানুষের অধিকার অর্জনে সরকার বিভিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছে : সিলেট বিভাগীয় কমিশনার শনিবার মাওলানা আব্দুল মতীন ফাউন্ডেশন সিলেটের শীতবস্ত্র বিতরণ মতবিরোধ পরিহার করে মুসলিমদের এক হওয়ার ডাক দিলেন এরদোগান ট্রাম্প সহিংসতা উসকে দিচ্ছেন, দায় তাকেই নিতে হবে: নির্বাচনী কর্মকর্তা দেশে করোনাভাইরাসে আরও ৩৮ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২১৯৮ বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান এবার উন্মুক্ত স্থানে নয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী করোনায় দেশে গত ২৪ ঘন্টায় আরও ৩১ মৃত্যু, শনাক্ত ২২৯৩ প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রীর রোগমুক্তি কামনায় গোয়াইনঘাট গ্রাম পুলিশের মিলাদ মাহফিল সাঈদুর রহমান লিটনের কবিতা “ফুলকি” দেশের গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় তাখাসসুসের মাদরাসা প্রতিষ্ঠা জরুরি : আল্লামা আলিমুদ্দিন দুর্লভপুরী

ধর্ষণ কেন হয়, এর উৎস এবং প্রতিকার

ইমরান হুসাইন সেলিম
  • প্রকাশটাইম: বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর, ২০২০

অধুনা ভার্চুয়াল জগতে বা সোশ্যাল মিডিয়ায় চোখ রাখলেই অপকটে ভেসে ওঠে লম্পট ও বর্বরদের দ্বারা নির্যাতিত মা-বোন, বৃদ্ধা কিংবা নিষ্পাপ কোনো শিশুর নিপীড়িত চিত্র। প্রতিনিয়ত এ ভয়াবহ দৃশ্যাবলী আমাদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে আইয়্যামে জাহিলিয়াতের চেয়েও চরম বর্বরতার এক অপ্রত্যাশিত সময় পার করছি আমরা।

ধর্ষণের মতো ঘৃণ্য একটি কাজ কেবল একটা কারণেই হতে পারে যে,নারীদের অবাধ চলাফেরা,
যৌন আবেদনময়ী পোশাক পরিধান প্রভৃতিতে
লম্পটদের দৃষ্টি সর্বদা নারীদের নাদুসনুদুস শরীরের উষ্ণতা চায়, তাদের স্পর্শ পেতে ওত পেতে থাকে। অথচ তারা যৌবনকালের তরঙ্গময় সময় পার করে রঙিন সময়ের শৌর্যবীর্যের উষ্ণতা শেষ করে একটা দিগন্তের দিকেই প্রতিনিয়ত এগিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু স্বাবলম্বিতার দোহাই দিয়ে তারা প্রণয় সূত্রে আবদ্ধ হতে চায় না।পাশাপাশি পর্ণগ্রাফী তাদের রঙিন চাহিদাকে উথলিয়ে দেয় যার দরুন তারা তর সইতে না পেরে অসৎ পথ বেছে নেয় আর এটা শুধু তাদের সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছতে না পারার ফল।

তাদের যদি জিজ্ঞেস করা হয়, আপনি বিয়ে করছেন না কেন? তারা বলবে, ভাই, কী করে যুগল জীবনে পদার্পণ করবো? এখনো নিজের পায়ে দাঁড়ানোর মতো হতে পারি নাই। এটা ঠিকই তারা বুঝে, কিন্তু নিজের ওপর তারা নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠিত করতে পারে না।

পাশাপাশি মহান আল্লাহর অমীয় বাণীর দিকেও তারা কর্ণপাত করে না যে, মহান আল্লাহ তা’য়ালা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন, “তোমাদের মধ্যে যারা অবিবাহিত তাদের কে বিবাহ করিয়ে দাও। এবং তোমাদের দাস-দাসীদের মধ্যে থেকে যারা সৎকর্মপরায়ন তাদেরকেও।”

যদি তারা দরিদ্র-অসচ্ছল হয়, তাহলে আল্লাহ নিজ অনুগ্রহে তাদেরকে সচ্ছল করে দিবেন আর আল্লাহ হলেন প্রাচুর্যময় এবং সর্বজ্ঞ।

উপরন্তু তারা পশ্চিমাদের প্রণীত নিয়মকে ঠিকই অনুসরণ করে যে, স্বাবলম্বী না হলে দাম্পত্য জীবন কল্পনাই করা যায় না। আল্লাহর এই বাণীর উপর চিন্তাশীল বিবেককে প্রয়োগ করলেই তো ধর্ষণ নামের এই অপকর্ম থেকে নিজেকে পবিত্র রেখে সৎ পন্থায় ভোগ-বিলাসের দ্বার উন্মোচিত করা যেতো।

বলাবাহুল্য, এক হাতে তালি বাজে না। আবার অন্যভাবে বলা যায়, ধর্ষণে যদিও একপক্ষের প্রভাব থাকে তবে অন্য পক্ষের অশ্লীল উপস্থাপনা ও উলঙ্গপনার কথাও না বললেই নয়। যেমন: ফেইসবুক, টুইটার, ইউটিউব ও মিডিয়ায় নারীবাদীরা নারী স্বাধীনতার নামে বিজ্ঞাপনকে সর্বত্র জনপ্রিয় করে তুলতে নারীকে অর্ধনগ্ন করে নিউজ দেয়। আবার অন্য দিকে শহরে, বাজারে কিংবা শপিংমলে গেলে দেখা যায় যে, নারীরা নিজেদেরকে কিভাবে অর্ধ উলঙ্গ করে, আঁটসাঁট পোশাক পরিধান করে অন্যের সামনে নিজের নাদুসনুদুস শরীর সমাদৃত করে দেয়। এতে করে সে নিজেও আকৃষ্ট হয় এবং অন্যকেও আকৃষ্ট করে একটা আনন্দবোধ করে। মনে হয় যেনো অন্যদের আকৃষ্ট করতে পারলেই তাদের আনন্দের কোন সীমা থাকে না। অধিকন্তু এখান থেকেই ধর্ষণ, নৈরাজ্যতার সৃষ্টি হয়।

মহিলাদের অশ্লীলতা সম্পর্কে হাদীসে আছে;
হযরত আবু হুরায়রা রাযি.থেকে বর্ণিত আল্লাহর রাসূল সা.বলেন জাহান্নামবাসী দু’টি দল রয়েছে, যাদেরকে আমি এখনো দেখিনি। তাদের একদল এমন, যারা গরুর লেজের মতো লাঠি হাতে নিয়ে মানুষকে প্রহার করতে থাকবে।
তাদের দ্বিতীয় দল হলো ,ঐ মহিলারা যারা কাপড় পরিধান করেও উলঙ্গ থাকবে এবং নিজেরা অন্যের প্রতি আকৃষ্ট হবে এবং অন্যকেও নিজের প্রতি আকৃষ্ট করবে। দেখে মনে হবে তাদের মাথা বুখতী উটের কুজের ন্যায়, তারা জান্নাতে প্রবেশ করবে না এবং জান্নাতের ঘ্রাণ ও পাবে না অথচ এর ঘ্রান অনেক দূর থেকেও পাওয়া যায়।
দ্বিতীয় দলটির কথাই এখানে প্রাধান্যদান।

এ ধর্ষণ ও অরাজকতা দূর করতে আমাদের অর্থাৎ অভিভাবক,গৃহকর্তা ও নিজেকে সোচ্ছার ও সচেতন রাখতে হবে। যেমন: দায়িত্ব সম্পর্কে নবী করীম সা.বলেন; তোমাদের প্রত্যেকেই দায়িত্বশীল। সুতরাং প্রত্যেককেই তার দায়িত্ব সম্পর্কে জিজ্ঞাসিত হতে হবে।

সুতরাং, আল্লাহ তা’আলা এবং তাঁর রাসূল প্রদত্ত বিধান ও দেখানো পন্থায় চললে সকল নৈরাজ্য-অরাজকতা পরিহার সম্ভব হবে। অন্যথায় পুরো জাতিই দুর্নিবার ধ্বংস ও শাস্তির মুখাপেক্ষী হবে।

আল্লাহ সবাইকে এ ধরনের দাঙ্গা-হাঙ্গামা থেকে বেঁচে থাকার তাওফিক দান করুন।

ইমরান হুসাইন সেলিম | শিক্ষার্থী, দরগা মাদরাসা

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
copyright 2020: ittehadtimes24.com
Theme Customized BY MD Maruf Zakir